TURNER IT SOLUTION

বুধবার ১৭ জানুয়ারী ২০১৮ || সময়- ৮:১২ am

Warning: include(usbd/config/connect2.php) [function.include]: failed to open stream: No such file or directory in /home/onn24/public_html/details.php on line 82

Warning: include(usbd/config/connect2.php) [function.include]: failed to open stream: No such file or directory in /home/onn24/public_html/details.php on line 82

Warning: include() [function.include]: Failed opening 'usbd/config/connect2.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/onn24/public_html/details.php on line 82

Warning: mysql_num_rows() expects parameter 1 to be resource, boolean given in /home/onn24/public_html/details.php on line 84

সুরত আলীর ইন্টারভিউ

  • সুরত আলীর ইন্টারভিউ

    সুরত আলীর ইন্টারভিউ

‘ইস্মাইল...!’

ব্যস, শব্দটা শোনার পরই সুরত আলী তাঁর চাঁদ বদনে বিশাল এক হাসি ফুটিয়ে তুললেন। তারপরই ক্যামেরার ক্লিক শব্দ শোনা গেল। একবার, দুইবার, তারপর বেশ কয়েকবার। সুরত আলী তাঁর মুখে হাসি ধরেই রেখেছেন। এরই মধ্যে ছবি তোলা শেষ করে রিপোর্টার বললেন, ‘নেন, এবার মুখের শাটারটা নামান। অনেক ছবি তোলা হয়েছে। এবার কয়েকটা প্রশ্ন করি।’ সাংবাদিকের কথা শুনে সুরত আলী তাঁর মুখের শাটার নামানোর বদলে আরো প্রসারিত করে বললেন, ‘জি জনাব, ছবি তো অনেক তোলা হলো। এবার বাৎচিতে আসা যাক হে হে হে...।’

‘তা নির্বাচনে কামিয়াব হলে অত্র গ্রামের জন্য আপনি সর্বপ্রথম কী করবেন বলে চিন্তা করে রেখেছেন?’ সাংবাদিক জিজ্ঞেস করলেন।

সুরত আলী বললেন, ‘বাংলাদেশের অনেক গ্রামেই ব্রিজ আছে কিন্তু সেদিক থেকে আমরা খুবই অবহেলিত। আমি যদি এবার চেয়ারম্যান হতে পারি, তাহলে এ এলাকায় একটি ব্রিজ করে দেব।’

সাংবাদিক বললেন, ‘ভালো কথা। কিন্তু ব্রিজ কোথায় করবেন? আপনার গ্রামে তো কোনো নদীই নেই।’

সুরত আলী বললেন, ‘এটা কোনো ব্যাপার না। দরকার হলে আগে নদী খনন করব, তারপর ব্রিজ বানাব।’

সাংবাদিক জিজ্ঞেস করলেন, ‘কিন্তু আপনাকে কি সরকার বিনা কারণে খাল খনন করতে দেবে?’

‘দেখুন, এ ধরনের পরিস্থিতিতে পড়লে আমি সরকারের বিরুদ্ধে অনশনে যাব বলে ভেবে রেখেছি। প্রতিদিন চার ঘণ্টা করে অনশন চলবে। যত দিন সরকার আমার গ্রামে খাল খনন করে ব্রিজ বানাতে না দেবে, তত দিন এই অনশন চলবে ভাইজান।’ সুরত আলীর জবাব।

সাংবাদিক জিজ্ঞেস করলেন, ‘তা কোন সময়ে আপনি অনশন করবেন?’

সুরত আলী জবাবে বললেন, ‘অনশনের মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজে আমি দেরি করব না। সকাল ৮টার সময় নাশতা সেরেই সঙ্গী-সাথিদের নিয়ে অনশনে নেমে যাব। আবার দুপুরের খানার আগে দিয়ে অনশন ভঙ্গ করে যে যার মতো বাসায় ফিরে আসব। সরকার আমাদের দাবি না মানা পর্যন্ত এই কর্মসূচি চলবে ভাইজান।’

সাংবাদিক বললেন, ‘এবার অন্য প্রসঙ্গে আসি। শুনলাম, আপনি নাকি পাঁচটি গরু জবাই করে আপনার লোকজনকে খাইয়েছেন। গরু কেনার জন্য এত টাকা কোথায় পেলেন?’

সুরত আলী হেসে বললেন, ‘ও আপনিও সে কথা শুনে ফেলেছেন, হে হে হে...? আসলে হয়েছে কি, আমার গ্রামেরই এক গরুর ব্যাপারী সব সময় আমার বিরোধিতা করে। ওর ওপর আমার মেজাজটা বিরাট খারাপ ছিল। ব্যাপারটা ধরতে পেরে সেই গরুর ব্যাপারী আমার মন ভালো করার জন্য এক দিন আমার বাসায় একটা গরু নিয়ে হাজির। বলে, গরুটা নাকি তার উপহার। আমাকে উপহার গ্রহণ করতে হবে।’

‘তারপর...’ সাংবাদিক জিজ্ঞেস করলেন।

‘তারপর আর কি। আমি তো ভাই ঘুষ নিতে পারি না। তাই গরুর ব্যাপারীকে বললাম, আমি এটা নিতে পারি না, এতে দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেওয়া হবে। তুমি গরু নিয়ে যাও। শুনে গরুর ব্যাপারী মন খারাপ করল। তারপর বলল, তাহলে জনাব গরুর দাম বাবদ আপনি ১০টি টাকা দিলেই হবে। তাহলে জিনিসটা কেনাবেচা হলো। কেউ বলতে পারবে না ঘুষ দিলাম।’

সাংবাদিক বললেন, ‘আচ্ছা বুঝলাম। তারপর...?’

সুরত আলী বললেন, ‘এত কম দামে গরু পাচ্ছি দেখে সুযোগ হাত ছাড়া করলাম না। গরুর ব্যাপারীকে বললাম, তাহলে আমাকে পাঁচটি গরুই দেন। এই বলে আমি ওর হাতে ৫০ টাকার একটা নোট বাড়িয়ে দিলাম। সেই গরু দিয়েই তো আমার পোলাপানদের খাওয়ালাম।’

‘এবার আপনার পড়ালেখার ব্যাপারে আসি। শুনলাম আপনি লেখাপড়া জানেন না। তা স্কুলে যাননি কেন?’ সাংবাদিক জিজ্ঞেস করলেন সুরত আলীকে।

সুরত আলী বললেন, ‘স্কুলে যাইনি কে বলল? আমি স্কুলে গিয়েছিলাম। কয়েক দিন ক্লাসও করেছি; কিন্তু এই কয়েক দিন আমি পর্যবেক্ষণ করে দেখলাম, আমি যে স্কুলে পড়ি সেই স্কুলের টিচাররা কিছুই জানেন না। তাঁরা সব সময় শুধু ছাত্রদেরই পড়া জিজ্ঞেস করেন। এ রকম একটা প্রতিষ্ঠানে বসে বসে সময় নষ্ট করা ঠিক হবে না ভেবেই আমি স্কুল ত্যাগ করি।’

সাংবাদিক জিজ্ঞেস করলেন, ‘তা এরপর আপনার পরিকল্পনা কী? মানে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর রাজনৈতিকভাবে আর কী করতে চান?’

সুরত আলী বললেন, ‘জি, এটা একটা ভালো প্রশ্ন করেছেন। চেয়ারম্যান হওয়াটাই আসলে আমার মুখ্য উদ্দেশ্য না। আমি এরপর এমপি ইলেকশনে দাঁড়াতে চাই। এমপি হতে চাই। আশা করি আমি সেটা পারব।’

‘কিন্তু আমি অভিযোগ পেলাম আপনি নাকি আপনার নির্বাচনী পোস্টার ছাপানোর বিলও এখনো পাস করেননি। এমন করলে জনগণ কী আপনাকে ভোট দেবে?’ -সাংবাদিকের প্রশ্ন।

সুরত আলী বিচলিত না হয়ে বললেন, ‘টেনশন করবেন না। আগে এমপি হয়ে নিই। তারপর সংসদে গিয়ে তো শুধু বিলই পাস করব, তাই না, হে হে হে...।’

সাংবাদিক বললেন, ‘আমরা ইন্টারভিউয়ের একেবারে শেষ দিকে এসে গেছি। আমরাও চাই আপনি আস্তে আস্তে আরো বড় হন। আরো বড় বড় নির্বাচনে পাস করেন; কিন্তু একটা বিষয়ে আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। বর্তমান সময়ের অনেক পলিটিশিয়ান দেশের কাজ ফেলে আমোদ-প্রমোদে মত্ত, দুর্নীতিতে ছেয়ে গেছে দেশ। আপনি কি ভবিষ্যতে এর বিরুদ্ধে লড়াই করার পরিকল্পনা করছেন?’

সুরত আলী তাঁর কপালে গোটা কয়েক ভাঁজ ফেলে বললেন, ‘পাগল নাকি! আমার কী আমোদ-প্রমোদ করতে শখ হয় না?’

 

ONN TV
payoneer
নিউজ আর্কাইভ
সর্বাধিক পঠিত
সখিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২ ব্যাপী ক্রীড়া ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান
ক্রীড়া ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান

সাতক্ষীরা  প্রতিনিধি: সখিপুর ইউনিয়নের সখিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২ দিনব্যাপী ক্রীড়া, কুইজ, রচনা প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বে-সরকারি প্রতিষ্ঠা

জেলা পরিষদের সদস্য প্রাথী শাপলার গনসংযোগ
জেলা পরিষদের সদস্য প্রাথী শাপলার গনসংযোগ

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও ইউপি চেয়ারম্যানদের সাথে গনসংযোগ করেছেন জেলা পরিষদের সদস্য প্রার্থী সোনিয়া পারভীন শাপলা। সোমবার

দেবহাটা রিপোর্টাস ক্লাবের নবগত নির্বাহী অফিসারের সাথে ফুলের শুভেচ্ছা ও মতবিনিময়
 শুভেচ্ছা ও মতবিনিময়

দেবহাটা প্রতিনিধি: দেবহাটা উপজেলা নবগত নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে ফুলের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দেবহাটা রিপোর্টাস ক্লাবের নের্তৃবৃন্দরা। সোমবার দুপুরে নির

দেবহাটায় ছাত্রলীগের ৪দলীয় ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট
৪দলীয় ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট

মীর খায়রুল আলম, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: দেবহাটায় ছাত্রলীগের উদ্যেগে ৪দলীয় ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বিকালে উপজেলার গোপাখালি মাঠে দে

দেবহাটায় ইএনও’র বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন
দেবহাটায় ইএনও’র বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন

মীর খায়রুল আলম:: দেবহাটা উপজেলাকে মডেল করতে ছুটির দিনে উপজেলার বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাফিজ আল-আসাদ। শুক্রবা

শিরোনাম